সড়কের স্থায়িত্ব ও গুণগত মান রক্ষায় শুষ্ক
মৌসুমে কাজ করার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

এ এইচ হিমালয় ঃ কাজের গুণগত মান ঠিক রাখতে বর্ষা মৌসুমে সড়কে কার্পেটিংয়ের কাজ করায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের। সিটি মেয়রও কয়েকবার মৌখিকভাবে এই নির্দেশনা দিয়েছেন। নিষেধ না মেনেই নগরীর কেডিএ অ্যাভিনিউয়ের ময়লাপোতা (বঙ্গবন্ধু চত্বর) মোড়ে কাপের্টিং করতে দেখা গেল খুলনা সিটি করপোরেশনকে (কেসিসি)। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে এবং দুপুর খুলনা নগরীকে কয়েক দফা বৃষ্টি হয়। বৃষ্টির পানি শুকানোর আগেই সড়কে চলেছে কাজ।
কেসিসি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক অসুস্থ অবস্থায় রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার অনুপস্থিতিতেই কাজ চলছে। এই কাজে মেয়রের সম্মতি ছিলো কি-না যায়নি।
খুলনা সিটি করপোরশনের অন্য একটি প্রকল্পের পরামর্শক হিসেবে কাজ করছে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় (কুয়েট)। কুয়েটের উপাচার্য ও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রবীণ শিক্ষক প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন পূর্বাঞ্চলকে বলেন, বিটুুমিনের প্রধান শত্রু পানি। পানিতে বা ভেজা সড়কে বিটুমিনের কাজ করলে সেই কাজ দীর্ঘস্থায়ী হয় না। এজন্য বিটুমিনের সব ধরনের কাজ শুষ্ক মৌসুমে করা উচিত। আজ থেকেই সব ধরনের বিটুমিনের কাজ বন্ধ করার পরামর্শ দেন তিনি।
কেসিসি থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশ মিউনিসিপ্যাল ফান্ড (বিএমডিএফ) এর অর্থায়নে নগরীর কেডিএ অ্যাভিনিউ সংস্কার করা হচ্ছে। এই কাজের মূল অংশ ছিলো ড্রেন ও ফুটপাত নির্মাণ। এই কাজ শেষ হয়েছে আরও আগে। কেডিএ অ্যাভিনিউয়ের দুই পাশে প্রশস্ত দৃষ্টিনন্দন ফুটপাত মুগ্ধ করছে নগরবাসীকে।
এই কাজের অংশ হিসেবে গত শুষ্ক মৌসুমে সড়ক কার্পেটিং করা হয়। ওই সময় ৯৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। নগরীর ময়লাপোতা মোড়ে সড়কে কিছু অংশের কাজ বাকি ছিলো। গতকাল দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সেই কাজ করা হয়েছে। কাজ চলাকালীন সময়ে বৃষ্টি হয়নি।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ২টা ২০ মিনিটে ময়লাপোতা মোড়ে গিয়ে দেখা গেছে, কিছু সময় আগে বৃষ্টি শেষ হওয়ায় সড়কটি পানিতে ভেজা রয়েছে। এর মধ্যেই কার্পেটিং করা হচ্ছে। কেসিসির জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলীদের ওই স্থানে দেখা যায়নি।
খুলনা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ আমিরুল আজাদ বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনায় ১৫ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। এর মধ্যে মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে ৩ মিলিমিটার।
বৃষ্টির মধ্যে সড়কের কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে কেসিসির প্রধান প্রকৌশলী এজাজ মোর্শেদ চৌধুরী পূর্বাঞ্চলকে বলেন, সকালে আবহাওয়া ভালো ছিলো। হঠাৎ বৃষ্টি চলে আসবে আমরা বুঝিনি। বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পরেই আমরা কাজ করেছি। আশা করছি সমস্যা হবে না।